| |

সরিষাবাড়ীর পিডিবি যেন খাস বৈধ গ্রাহকের কাধে অবৈধ গ্রাহকের বোঝা

আপডেটঃ 8:30 pm | April 25, 2017

Ad

সরিষাবাড়ী প্রতিনিধিঃ জামালপুরের সরিষাবাড়ী পিডিবি এখন যেন খাস পিডিবি কর্মকর্তাদের যোগসাজসে অবৈধ গ্রাহক সৃষ্টি করে বাড়তি বিলের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে বৈধ গ্রাহকের কাধে। যার যার মন গড়া ভাবে বিদ্যুৎ লাইন নিয়ে বাড়ী বা সেচপাম্প ব্যবহার করছে,যেন দেখার মত কেউ নেই।
সরেজমিনে ঘুরে দেখা গেছে, সরিষাবাড়ী পিডিবি এখন যেন খাস পিডিবি কর্মকর্তাদের যোগসাজসে অবৈধ গ্রাহক সৃষ্টি করে বাড়তি বিলের বোঝা চাপিয়ে দেয়া হচ্ছে বৈধ গ্রাহকের কাধে।এমনকি সরিষাবাড়ী উপজেলা পাড়ি দিয়ে সীমান্তবর্তী এলাকা কাজীপুর উপজেলার মুনসুর নগর ইউনিয়নের কুমারিয়াবাড়ী গ্রামে পিডিবির অবৈধ লাইন।

এ অবৈধ লাইনের মাধ্যমে আবাসিক ও বাণিজ্যিক লাইন দিয়ে রমরমাভাবে ব্যবসা চালিয়ে আসছে পিডিবির কিছু অসাধু কর্মকর্তা। ওই গ্রামের লাল মিয়া, পিতা-শাহা মন্ডল, মঞ্জু মিয়া, পিতা-ফজির রহমান, আব্দুল জব্বার, পিতা-কছের শেখ, জাহিদুল ইসলাম, পিতা-বিল্লাল উদ্দিন, বারেক মন্ডল, পিতা-দিলবার সেখ, তুজাম মিয়া, পিতা-সায়েদ আলী, মজিবর রহমান, পিতা-জুব্বার রহমান এ গ্রাহকগণ পিডিবি লাইন নিয়ে বাণিজ্যিক ভাবে সেচপাম্প চালিয়ে আসছে।

এ ব্যাপারে এলাকাবাসীরা জানায়, দালালদের যোগসাজসে পিডিবি কর্মকর্তা এবং কর্মচারীরা মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে এসব অবৈধ লাইন দিয়ে আসছে।

তারা এ ভাবে অবৈধ লাইন দিয়ে আমাদের মত দরিদ্র বৈধ গ্রাহকের মিটার না দেখে অতিরিক্ত বিল করে ভিটেমাটি ছাড়া করার উপক্রম করে তুলেছে।এ ব্যাপারে পিডিবি উপ-প্রকৌশলী জামাত আলী আকন্দের কাছে জানতে চাইলে তিনি অফিসে তুলপাড় চালিয়েও এসব গ্রাহকের কোন নথিপত্র প্রমান দিতে পারেনি।

আবার প্রতি মিটারে ১টাকা ২০ পয়সা হারে মিটার রিডারের বিল পরিশোধ করা হলেও কেন মিটার না দেখে বিল করা হয়। এ ব্যাপারে সাংবাদিকরা জানতে চাইলে তিনি জানান, এ ধরণের কোন বিল নেয়া হয় না বলে জানান জামাত আলী আকন্দ।

ব্রেকিং নিউজঃ