| |

ত্রিশাল উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের মনোনয়ন পেয়েছেন ইকবাল হোসেন

আপডেটঃ 7:30 pm | March 03, 2019

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ চতুর্থ ধাপের উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান প্রার্থীদের চূড়ান্ত নামের তালিকা প্রকাশ করেছে আওয়ামী লীগ। শুক্রবার বিকেল সাড়ে ৪টার দিকে দলের স্থানীয় সরকার মনোনয়ন বোর্ডের সভায় মনোনীত প্রার্থীদের নামের তালিকা চূড়ান্ত করা হয়। রাতে আওয়ামীলীগের দফতর সম্পাদক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ স্বাক্ষরিত এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে চূড়ান্ত প্রার্থী তালিকার বিষয়টি জানানো হয়।

ত্রিশাল উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পেয়েছেন আলহাজ্ব মো: ইকবাল হোসেন। তিনি উপজেলা নির্বাচনে সর্বাধিক জনপ্রিয় প্রার্থী। আসন্ন নির্বাচনে নৌকা প্রতিকে ত্রিশাল উপজেলা বাসির প্রতি আলহাজ্ব ইকবাল হোসেন এর দোয়া ও আর্শিবাদ কামনা করেছেন।

তিনি জানান, ত্রিশালের অবহেলিত জনগনের জীবনমানের উন্নতি করতে চাই, বিশ্বাস রাখুন আমার প্রতি, অর্থ গাড়ী বাড়ির আমার কোন প্রয়োজন নাই। আমি যদি আপনাদের ভোটে চেয়ারম্যান হতে পারি আমার সম্মানী ভাতাটুকুও আমি দান করে দিবো। রাজনীতি আর দুর্নীতি এক সাথে থাকতে পারেনা। আমার প্রিয় নেতার কথা আমার রাজনৈতিক জীবনের আদর্শ হোক। ত্রিশাল উপজেলা বর্তমানে অর্থনৈতিক জোন হিসাবে স্বীকৃতি পেয়েছে। আমি আমার এলাকার পরিবর্তন চাই।

আমার সু পরিকল্পনা বাস্তবিক রুপ দিতে চাই। জাতীয় কবি কাজী নজরুল ইসলামের স্মৃতি বিজড়িত, অনেক গুনি মানুষের জন্ম এ ত্রিশালকে আধুনিক ত্রিশালের রুপান্তরিত করতে চাই। আপনাদের ভালোবাসা আর আর্শিবাদ নিয়ে থাকতে চাই। ভোগের নয় ত্যাগের রাজনীতি প্রতিষ্ঠা করতে চাই।

আপনাদের দোয়া ও আর্শিবাদ চাই, ত্রিশাল উপজেলার মোক্ষপুর ইউনিয়নে আমার জন্ম। শৈশবকাল কেটেছে মোক্ষপুরে। বাবা মোসলেম উদ্দীন সাহেব বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রতিষ্ঠাতা লগ্ন থেকে একজন সক্রিয় কর্মী ছিলেন। স্কুল ছাত্র জীবন থেকে বাবার মুখে বঙ্গবন্ধুর নীতি ও আদর্শের কথা শুনে বেড়ে উঠেছি। বাংলাদেশ ছাত্রলীগের রাজনীতির সাথে জরিয়ে পরেছি, পরবর্তীতে ত্রিশাল উপজেলা ছাত্রলীগের যুগ্ন আহবায়ক এর দায়িত্ব পালন করেছি।

বর্তমানে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের ত্রিশাল উপজেলা শাখার সম্মনীত সদস্য। সক্রিয় কর্মী হয়ে রাজপথে থেকে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশ অক্ষরে অক্ষরে পালন করেছি। রাজনীতির পাশাপাশি ব্যাক্তিগত উদ্যোগে ব্যবসার সাথে জড়িয়ে পরেছি। সৎ ও সততার মাঝে থেকে বৈধ ভাবে মহান রাব্বুল আলামীন আমাকে যা দিয়েছে আমি আল্লাহর নিকট কৃতজ্ঞ।

আমার আর কিছু চাওয়া পাওয়ার নাই। সংসার জীবনে আমার এক ছেলে এক মেয়ে। মেয়ে ময়মনসিংহের বিদ্যাময়ী সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেনীর ছাত্রী। ছেলে নতুন কুড়িতে প্লে শ্রেনীতে পড়ে। স্ত্রী উচ্চ শিক্ষিতা, বর্তমানে হাউস ওয়াইফ। বিগত কয়েক বছর যাবৎ ত্রিশালবাসি যখন যেখানে আমাকে ডেকেছেন আমি উপস্থিত হয়েছি। আপনাদের বিভিন্ন সমস্যার কথা বলেছেন, আমি শুনেছি।

আমার ব্যাক্তিগত তহবিল থেকে সমস্যা সমাধানের চেষ্ঠা করেছি। আপনাদের দাবীর মুখে আজ আমি উপজেলা চেয়ারম্যান পদপ্রার্থী হয়েছি। আমার চেয়াম্যান পদের প্রার্থীতা ঘোষনার পর আপনাদের মাঝে যে উচ্ছ্বাস উদ্দীপনা দেখেছি তা আমাকে বিমোহিত করেছে। আমাকে উৎসাহিত করেছে। প্রয়াত নেতা জনাব সৈয়দ আশরাফ সাহেব আমার অত্যান্ত শ্রদ্ধাভাজন ব্যক্তি ছিলেন।

আমি তাঁহার বিদেহী আত্তার মাগফেরাত কামনা করছি। মহান আল্লাহ্তায়ালা যেন তাকে বেহেস্ত নসীব করেন। তিনি বলে ছিলেন, আওয়ামীলীগ একটি অনুভূতির নাম” সত্যিই এর অনুভূতি খুবই প্রকট ” আমার প্রিয় সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের নীতি ও আদর্শ আমার রক্তের সাথে মিশে গেছে। এটা আমি অনুভব করি। আমি আপনাদের সেবা করতে চাই।

ব্রেকিং নিউজঃ