| |

বিরল প্রজাতির ফুল বাসন্তী

আপডেটঃ 11:09 pm | March 11, 2021

Ad

প্রদীপ ভৌমিক : ময়মনসিংহ বিভাগীয় বন বিভাগের অফিসের সামনের বাগানে দেখা মেলে এই বিরল প্রজাতির “বাসন্তী”ফুলের গাছটির। রবিউল ইসলামের লেখা থেকে প্রথম জানতে পারি গাছটি সমন্ধে।।তারপর দেখতে যাই “বাসন্তী “ফুল ও তার গাছটিকে।জানতে পারলাম বৎসরে একবার বসন্তকালে গাছটিতে ফুল ফোটে।যার আয়ুস্কাল মাত্র ৬দিন।ফুল ফোটার দিনের পূর্বে গাছটির সমস্ত পাতা ঝরে যায় থাকে শুধু কান্ড। আর সেই কান্ডের মাঝেই ফুটে থোকা থোকা হলুদ রংয়ের ফুল যার নাম কেউ জানত না।প্রকৃতি ও পুস্প প্রেমিক রবিউল ফুলটি বসন্ত কালে ফুটে বলে একে “বাসন্তী”নামে নামাকরন করেছে। আমরা এখন একে রবিউলের দেয়া নামেই সন্মোধন করছি।অনুসন্ধানে জানা যায় এই ফুল গাছটির বৈজ্ঞানিক নাম ট্যাবেবুইয়া (Tabebuia),ইংরেজী নাম Yellow Lapacho. এটি বেগ্নানিয়ালি পরিবারের উদ্ভিদ। এর আদি নিবাস ব্রাজিলে।এটি কিভাবে ময়মমনসিংহ বিভাগীয় বনবিভাগের অফিসের সামনে কার দ্বারা রোপিত হল তা জানা যায়নি। বছরের এক বার বসন্তকালে গাছটিতে হলুদ রংয়ের ফুল ফোটে তাও মাত্র ছয় দিনের জন্য।ছয়দিন পর সমস্ত ফুল ঝরে যায় আর গাছটির কান্ডে নতূন সবুজ পাতা গজিয়ে গাছটি আচ্ছাদিত হয়ে যায়। এক বৎসর পর আবার বসন্তকালে পাতা ঝরে গিয়ে ৬ দিনের জন্য “বাসন্তী” ফূল ফোটে।উদ্ভিদ বিজ্ঞানীদের সাথে যোগাযোগ করে জানা গেছে এটি পৃথিবীর বিরল প্রজাতির বিলুপ্ত প্রায় একটি গাছ।এর কোন বীজ জন্মায় না।উদ্ভিদ বিজ্ঞানীদের এই গাছটির বংশ বিস্তারের উপায় উদ্ভাবন করা উচিৎ বলে মনে করে বৃক্ষ প্রেমিকরা।

ব্রেকিং নিউজঃ