| |

“দুর্গা পূজা উপলক্ষে ১১ মাসের শিশুর দাবী, তার বাবার কারা মুক্তি

আপডেটঃ 5:24 pm | September 19, 2021

Ad

প্রদীপ ভৌমিক শারদীয় দুর্গোৎসবে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের প্রত্যেকটি শিশু প্রত্যাশা করে সে তার পিতার কোলে উঠে দেবী দুর্গাকে দর্শন করবে। আসন্ন দুর্গোৎসব উপলক্ষে সুনামগঞ্জের কারাবন্দি ঝুমুন দাসের শিশু সন্তানটি তার মায়ের কোলে উঠে পথ চেয়ে থাকে কখন তার বাবা আসবে। কোলে তুলে নেবে তাকে।তার প্রিয় লাল জামাটি পড়িয়ে দিয়ে চুমুয় চুমুয় সিক্ত করবে তার রক্তিম গাল দুটো। দিন যায় রাত যায় কিন্তু তার বাবা ফিরে আসে না। ঝুমন দাসের স্ত্রী অবুঝ শিশুটিকে কোলে নিয়ে পথ চেয়ে থাকে তার স্বামীর। সুনামগঞ্জের দিরাইয়ে শাল্লায় তৎকালীন হেফাজতের আমীর প্রয়াত বাবুনগরী ও হেফাজতের যুগ্ন সম্পাদক মামুনুল হক বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য নিয়ে ও সনাতন ধর্মালম্বীদের বিরুদ্ধে আপত্তিকর বক্তব্য এবং বর্তমান সরকারকে উৎখাতের আবেদন করে বক্তব্য প্রদান করেছিল, তার বিরুদ্ধে ১৭ ই মার্চ প্রতিবাদ করে একটি স্ট্যাটাস সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে প্রদান করে ঝুমন দাস। সেই স্ট্যাটাসকে কেন্দ্র করে বাবুনগরী ও মামুনুল হকের অনুসারী হেফাজত কর্মীরা শাল্লার নওগাঁও সহ পার্শ্ববর্তী এলাকাসমূহে সংখ্যালঘুদের বাড়িঘর ভাঙচুর ,অগ্নিসংযোগ, লুটতরাজ সহ নারী নির্যাতনের মত ঘটনা ঘটায়। তারই পরিপ্রেক্ষিতে দাঙ্গাবাজদের নেতা স্বপন মেম্বার সহ গ্রেপ্তারকৃত ৫২জন হেফাজত অনুসারীকে পুলিশ গ্রেপ্তার করে জেল হাজতে প্রেরণ করে। সেইসাথে বাবুনগরী, মামুনুল হকের বক্তব্যের প্রতিবাদ করে স্ট্যাটাস প্রদানকারী ঝুমন দাসকে পুলিশ প্রথমে ৫৪ ধারা মূলে গ্রেপ্তার দেখিয়ে পরবর্তীতে আইসিটি আইনে অপরাধী করে জেলহাজতে প্রেরণ করে। দাঙ্গাকারীদের নেতা স্বপন মেম্বার সহ গ্রেপ্তারকৃত৫২জন দুষ্কৃতিকারীদের সবাইকে আদালত জামিন প্রদান করলেও বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য ও সরকারের পক্ষে স্ট্যাটাস প্রদানকারি ঝুমন দাস জামিন পাচ্ছে না। গ্রেপ্তার হওয়া ঝুমন দাস এর উকিল গত ৭মাসে সাতবার জামিন আবেদন করলেও ঝুমন দাশকে জামিন প্রদান করে নাই। ঝুমন দাস এর আইনজীবী দেবাংশু শেখর দাস জানান স্থানীয় আদালতসহ এমনকি হাইকোর্ট তার মক্কেলকে জামিন দেয় নাই। তিনি দুঃখ করে বলেন গত সাত মাসেও থানা ফাইনাল রিপোর্ট প্রদান করেনি। নওগাঁ এর মুক্তিযোদ্ধা অনিল দাস বলেন ঝুমুর দাস ধর্মকে অপমান করে বক্তব্য দেন নাই। বঙ্গবন্ধুর ভাস্কর্য পক্ষে এবং হেফাজতের সরকারবিরোধী বক্তব্যের বিপক্ষে তার স্ট্যাটাসে লিখেছেন। অসাম্প্রদায়িক ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবের আদর্শের অনুসারীরা মনে করেন ঝুমন দাস যদি বঙ্গবন্ধু ও সরকার বিরোধী বক্তব্য প্রদান করত তাহলে হয়ত এতদিন তার জামিন হয়ে যেত ।যেমনি ভাবে হেফাজত অনুসারী স্বপন মেম্বারের মত দাঙ্গাকারী ও অভিযুক্ত ৫২ জনের জামিন হয়েছে।ঝুমন দাস এর স্ত্রী দুঃখ করে বলেন বঙ্গবন্ধু ও বর্তমান সরকারের পক্ষে কথা বলার অপরাধে তার সংসারের একমাত্র উপার্জনক্ষম ব্যক্তিটি কারাগারে থাকায় সে ১১ মাসের শিশু সন্তান নিয়ে অনাহারে অর্ধাহারে দিনযাপন করছে। সে সরকার‌ ও বাংলাদেশের মানুষের কাছে প্রতিশ্রুতি দিচ্ছে এবারের মত ঝুমন দাস কে মুক্তি দিলে ঝুমনদাস আর কোনদিন সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে ধর্মান্ধদের বিরুদ্ধে সরকারের পক্ষে কিংবা বিপক্ষে কোন কিছু লিখবে না।একজন সংখ্যালঘু হিসাবে আমিও সরকারের কাছে কাছে আবেদন জানাই । পূজা উদযাপন পরিষদ ও হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিস্টান ঐক্য পরিষদের নেতৃবৃন্দের কাছে অনুরোধ করছি আসুন ঝুমন দাস এর মুক্তির জন্য আমরা সোচ্চার হই। শারদীয় দুর্গোৎসবে আমাদের সন্তানদের মত ঝুমন দাস এর ১১ মাসের শিশু সন্তানটিও যেন তার বাবাকে কাছে পায়। বাংলাদেশের স্বাধীনতা প্রেমিক মুজিব আদর্শে বিশ্বাসী ও অসাম্প্রদায়িক চিন্তা-চেতনায় বিশ্বাসের প্রতি আবেদন জানাই আপনারা ঝুমন দাসের মুক্তির জন্য সোচ্চার হোন।

ব্রেকিং নিউজঃ