| |

নৌকা প্রতিকের প্রত্যাশায় উচাখিলা ইউনিয়নে দিনরাত প্রচার প্রচারনা চলিয়ে যাচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলাম

আপডেটঃ 4:19 pm | December 01, 2021

Ad

স্টাফ রিপোর্টার ॥ জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জনসভায় অংশ গ্রহন করে বঙ্গবন্ধুর আদর্শে অনুপ্রানিত হয়ে আওয়ামীলীগের রাজনীতিতে অংশ গ্রহন করেন সাবেক ছাত্রলীগের একনিষ্ট কর্মী বর্তমান আওয়ামীলীগের নেতা মো: নজরুল ইসলাম। জাতির জনক ট্রেন যোগে ময়মনসিংহে আসার পথে তৎকালীন সেনবাড়ী বর্তমান আহামদাবাদ রেলওয়ে স্টেশনের পথসভায় মরহুম ইসলাম চেয়ারম্যান এর নেতৃত্বে মিছিল সহকারে যোগদেন মো: নজরুল ইসলাম। ১৯৭০ সনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ঈশ^রগঞ্জ আসনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনীত নৌকা প্রতিকের প্রার্থী এডভোকেট আনোয়ারুল কাদির এর পক্ষে উচাখিলা হাই স্কুলের নির্বাচনী জনসভা বক্তব্য রাখেন। বঙ্গবন্ধুর সেই জনসভায় অংশ গ্রহন করেন মো: নজরুল ইসলাম। ১৯৭৭ সনে কলেজে লেখাপড়া অবস্থায় ছাত্রলীগের রাজনীতিতে অংশ গ্রহন করেন। ৭৫ সনের ১৫ আগষ্ট বঙ্গবন্ধু সহ বঙ্গবন্ধুর পরিবারের হত্যার প্রতিবাদে ও জাতীয় চারনেতাকে জেলখানায় হত্যার প্রতিবাদে মিছিল সহ লিফলেট বিতরন করেন। ১৯৭৯ সনে ত্রিশালের নজরুল কলেজে ছাত্র সংসদের নির্বাচনে ছাত্রলীগের পক্ষে কাজ করেন। একই বছর আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতিকের তৎকালীন সংসদ সদস্য প্রার্থী এডভোকেট আবুল হোসেন এর নির্বাচনী প্রচারনায় কাজ করেন। ১৯৮০ সনে গৌরীপুর কলেজে লেখাপড়া অবস্থায় ময়মনসিংহে অবস্থান কালে নাসিরাবাদ কলেজ ছাত্র সংসদের নির্বাচনে ছাত্রলীগের ভিপি প্রার্থী বর্তমান জেলা আওয়ামীলীগের সহসভাপতি আলহাজ¦ মমতাজ উদ্দিন মন্তা‘র পক্ষে নির্বাচনী প্রচারনায় কাজ করেন। একই বছর প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত কর্নেল এম এ জি ওসমানী এর পক্ষে কাজ করেন। ১৯৮১ সনে বিএনপির প্রতিষ্ঠাতা তৎকালীন প্রেসিডেন্ট জিয়ার মৃত্যুর পর সাত্তারের বিপক্ষে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী ড. কামাল হোসেন এর পক্ষে নির্বচনী কাজ করেন। ১৯৮৩ সনে মো: নজরুল ইসলাম অডিট এন্ড একাউন্স বিভাবে অডিটর হিসাবে চাকুরীতে যোগদান করেন। ১৯৯৬ সনে ১৫ দিনের ছুটি নিয়ে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী আলহাজ¦ এম এ সাত্তার এর পক্ষে কাজ করেন। ২০০১ ও ২০০৮ সনে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত প্রার্থী আলহাজ¦ এম এ সাত্তার এর পক্ষে কাজ করেন। এছাড়া বিগত সময়ে ঈশ^রগঞ্জ উপজেলা, ঈশ^রগঞ্জ পৌরসভা, স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামীলীগের মনোনীত নৌকা প্রতিকের পক্ষে কাজ করেন। চারদলীয় জোট সরকারের আমলে সরকারী চাকুরীরত অবস্থায় আওয়ামীলীগ করার কারনে হয়রানীমুলক বদলী সহ বিভিন্ন নির্যাতনের শিকার হন। আওয়ামীলীগ করার কারনে ভাই সহ পরিবারের লোকজন মিথ্যা মামলায় হয়রানী ও নির্যাতনের শিকার হন এবং নিরাপত্তার ভয়ে এলাকা ছেড়ে গাজিপুর সহ অন্যান্য স্থানে অবস্থান করেন। মো: নজরুল ইসলাম বর্তমানে উচাখিলা ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সদস্য, বঙ্গবন্ধু পরিষদ ইউনিয়ন শাখার সহসভাপতি, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন ঈশ^রগঞ্জ উপজেলা শাখার সভাপতি ও মসজিদ, মাদরাসা, স্কুল সহ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের গুরুত্বপুর্ন দায়িত্ব পালন করছেন। এছাড়া চাকুরীজীবনে তিনি জেলা হিসাব রক্ষন অফিসে অডিটর সমিতির সভাপতি এবং ময়মনসিংহস্থ ঈশ^রগঞ্জ সমিতির সহসভাপতি ছিলেন। করোনাকালীন সময়ে তিনি ইউনিয়নে গরীব, দুস্থ, অসহায় মানুষদের মাঝে মাক্স সহ ত্রান বিতরন করেন। তাঁর ছোট ভাই শরাফ উদ্দিন ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক ও উপজেলা শিক্ষক সমিতির সভাপতি (আওয়ামীলীগ পর্ন্থী)। চেয়ারম্যান প্রার্থী নজরুল ইসলামের সহধর্মীনি বীরমুক্তিযোদ্ধার সন্তান। বড় ছেলে মনিরুল ইসলাম জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সহ সম্পাদক, মেজো ছেলে জহিরুল ইসলাম ও ছোট ছেলে ফয়সাল আহমেদ জাতীয় কবি নজরুল ইসলাম বিশ^ বিদ্যালয় ছাত্রলীগের নেতা। আসন্ন ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে নৌকা প্রতিকের প্রত্যাশায় উচাখিলা ইউনিয়নে দিনরাত প্রচার প্রচারনা চলিয়ে যাচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতা নজরুল ইসলাম । তিনি বলেন, আমি জনগনের কাছে থাকতে চাই। জনগনের সেবা করতে চাই। জীবনের শেষ পর্যন্ত মানুষের সাথে থাকতে চাই। আমার কোন চাহিদা নাই। জনগনের সেবা করাই আমার লক্ষ ও উদ্যেশ্য। আওয়ামীলীগের দলীয় সভানেত্রী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনা মহোদয় সহ মনোনয়ন বোর্ডের সকলের কাছে একটাই প্রত্যাশা আমাকে নৌকা দিয়ে নির্বাচন করার সুযোগ দিবেন।

ব্রেকিং নিউজঃ