| |

“স্বাধীনতার ইতিহাসের অংশ নাজিম উদ্দিন আহমেদ

আপডেটঃ 11:20 pm | March 02, 2022

Ad

প্রদীপ ভৌমিক ॥ ২রা মার্চ পতাকা দিবস। আজকের এই দিনে ময়মনসিংহের টাউনহল ময়দানে বাংলাদেশের মানচিত্রখচিত পতাকা উত্তোলন করেন তৎকালীন বৃহত্তর ময়মনসিংহের ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতা ছাত্রলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ এমপি। সেই দিনটির কথা আমার স্পষ্ট মনে আছে। সকাল থেকেই ময়মনসিংহ শহরে স্বাধীনতাকামীদের মাঝে উত্তেজনা বিরাজ করছিল। খন্ড খন্ড মিছিল তখন টাউন হল অভিমুখে। মিছিলকারী ছাত্র-জনতা “জয় বাংলা” স্লোগান দিতে দিতে টাউনহল উপস্থিত হচ্ছেন। বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম “জয়বাংলা” বাহিনী নিয়ে সারা শহরে মার্চ করে এসে উপস্থিত হন টাউন হলের অস্থায়ী মঞ্চের সামনে। মঞ্চে সভাপতিত্ব করছেন ময়মনসিংহের আরেক বীরপুরুষ স্বাধীনতাযুদ্ধের সংগঠক ভাষাসৈনিক বীর মুক্তিযোদ্ধা রফিক উদ্দিন আহমেদ। বীর মুক্তিযোদ্ধা আবুল হাশেম জয়বাংলা বাহিনীর সদস্যদের নিয়ে সারা শহরে মার্চ করে মঞ্চের সভাপতি রফিক উদ্দিন ভূইয়া কে গার্ড অফ অনার প্রদান করেন। রফিকউদ্দিন ভুঁইয়া মঞ্চে দাঁড়িয়ে সেই গার্ড অফ অনার গ্রহণ করেন। মঞ্চের এক পাশে দাঁড়িয়ে বৃহত্তর ময়মনসিংহের ছাত্রলীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিম উদ্দিন আহমেদ। সেই অনুষ্ঠানটি পরিচালনা করছিলেন বৃহত্তর ময়মনসিংহের জেলা ছাত্রলীগের সেই সময়ের সাধারণ সম্পাদক বীর মুক্তিযোদ্ধা সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম। সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম ঘোষণা করলেন এখন পাকিস্তানি পতাকা পুড়িয়ে স্বাধীন বাংলার পতাকা উত্তোলন করবেন নাজিম উদ্দিন আহমেদ। নাজিম উদ্দিন আহমেদ পকেট থেকে পাকিস্তানি চাঁদ তারা খচিত পতাকা বের করে তাতে অগ্নিসংযোগ করলেন আর পতাকা স্ট্যান্ডে বাংলাদেশের মানচিত্র খচিত পতাকাটি উত্তোলন করলেন।” জয় বাংলা” স্লোগানে সারা ময়মনসিংহ টাউন হল ময়দান মুখরিত হয়ে উঠলো। প্রসঙ্গত উল্লেখ থাকে যে ১ মার্চ রাত্রে নাজিম উদ্দিন আহমেদ বাউন্ডারি রোডের আওয়ামী লীগের ত্যাগী কর্মী প্রয়াত তোতা ভাইকে পতাকাটি তৈরি করার জন্য দায়িত্ব দিয়ে ছিলেন। সমাবেশে সেই পতাকাটি তোতা ভাইয়ের কাছ থেকে এনে নাজিম ভাইয়ের কাছে পৌঁছানোর দায়িত্ব ছিল প্রয়াতডা: এরশাদুল করিম সেলিম ও আমি প্রদীপ ভৌমিকের উপর। তোতা ভাই ব্যক্তিজীবনে দর্জি ছিলেন ,তিনি সারা রাত পরিশ্রম করে পতাকাটি নির্মাণ করেন। যথারীতি নির্দিষ্ট সময়ে আমি পতাকাটি নাজিম ভাইয়ের হাতে পৌঁছে দেই। টাউন হল ময়দান তৎকালীন পাকিস্তান সরকারের ইপিআর ও পুলিশ এবং সামরিক বাহিনী সদস্যদের দ্বারা ঘেরাও করা ছিল। স্বাধীনতাকামী অকুতোভয় ছাত্রজনতা পাকিস্তান সরকারের প্রশাসনের রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে টাউন হল ময়দানে ময়মনসিংহে প্রথম বাংলাদেশের পতাকা উত্তোলন করেন। সেই কাজটি যিনি সাহসিকতার সহিত সম্পন্ন করেছিলেন তিনি হলেন বীর মুক্তিযোদ্ধা নাজিমউদ্দিন আহমেদ এমপি।আজকের এই দিনে সেই সমস্ত অকুতোভয় নেতৃবৃন্দ ও বীর ছাত্রজনতাকে পরম শ্রদ্ধা ভরে স্মরণ করছি।

ব্রেকিং নিউজঃ