| |

হোলির রঙে রঙিন বাংলাদেশ

আপডেটঃ 2:26 pm | March 23, 2016

Ad

আলোকিত ময়মনসিংহ : হোলির রঙে রঙিন হয়েছে বাংলাদেশ। সকাল থেকেই শিশু থেকে বৃদ্ধরা আবিরে মুখ রাঙাচ্ছেন। একে-অপরের মুখে-গায়ে নানা রঙে রাঙিয়ে দিচ্ছেন। সেইসাথে চলছে নাচ-গান হুল্লোড়।

দোলযাত্রা একটি বৈষ্ণব উৎসব। এ উৎসবের অপর নাম বসন্তোৎসব। ফাল্গুন মাসের পূর্ণিমা তিথিতে দোলযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। একে দোল পূর্ণিমাও বলে।

বৈষ্ণব বিশ্বাস অনুযায়ী, ফাল্গুনী পূর্ণিমা বা দোলপূর্ণিমার দিন বৃন্দাবনে শ্রীকৃষ্ণ আবির ও গুলাল নিয়ে রাধিকা ও অন্যান্য গোপীগণের সহিত রং খেলায় মেতেছিলেন। সেই ঘটনা থেকেই দোল খেলার উৎপত্তি হয়। দোলযাত্রার দিন সকালে তাই রাধা ও কৃষ্ণের বিগ্রহ আবির ও গুলালে স্নাত করে দোলায় চড়িয়ে কীর্তনগান সহকারে শোভাযাত্রায় বের করা হয়।

তবে দোলযাত্রা উৎসব এখন ধর্মনিরপেক্ষ। এই দিন সকাল থেকেই নারী-পুরুষ নির্বিশেষে আবির, গুলাল ও বিভিন্ন প্রকার রং নিয়ে খেলায় মত্ত হয়।

এ দিনটিকে ঘিরে উৎসবে মেতেছে পুরান ঢাকার আবাল বৃদ্ধা বণিতা। অপরূপ রূপে সেজেছে মন্দির, দালানকোঠা ও দোকানপাট। সেখানে হিন্দু তরুণ-তরুণীদের পাশাপাশি মুসলিমদেরও উৎসবে দেখা যায়। পুরান ঢাকার শাঁখারী বাজার, নয়া বাজার, বাংলাবাজার, ইসলামপুর, সূত্রাপুরসহ পুরো এলাকাই উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদও মেতেছে রঙের উৎসবে। সকাল থেকেই নানা রঙের পসরা সাজিয়ে এখানে জড়ো হয়েছেন শিক্ষার্থী ও তরুণেরা। এ ছাড়া টিএসসিসহ এর আশপাশের এলাকায় চলছে হোলি উৎসব।

চট্টগ্রামে সবচেয়ে বড় হোলি উৎসব হয় কোতোয়ালি থানার পাশে মেথরপট্টিতে। সেখানে মূলত সেবকদের বসবাস হলেও হোলির দিনে বিভিন্ন স্থান থেকে সেখানে জড়ো হন সব বয়সের সব ধর্মের মানুষ। একে-অপরের মুখে-গায়ে রং ছিটিয়ে হুল্লোড় করেন তারা। এবারও তার ব্যতিক্রম হয়নি। সকাল থেকেই সেখানে চলছে রং-উৎসব।

শুধু তাই-ই নয়, রং মেখে, রং মাখিয়ে সবাই সেলফি তুলছেন। আর তা দ্রুতই পোস্ট করছেন ফেসবুকসহ অন্যান্য যোগাযোগ মাধ্যমে।

উৎসবে আসা অনেকে বলেছেন, উৎসব এখন সবার। কোনো নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর মানুষের হাতে যে কোনো উৎসবের শুরুটা হলেও শেষ পর্যন্ত তা আর তাদের হাতে থাকে না। বাঙালি উৎসবমুখর জাতি। এ উৎসব সবাই দারুণভাবে উপভোগ করছি।

ব্রেকিং নিউজঃ