| |

একজন কর্মচঞ্চল ও কাজ পাগল মানুষ হলেন ঝিনাইগাতীর ওসি মিজানুর রহমান

আপডেটঃ 3:41 am | January 26, 2017

Ad

শেরপুর প্রতিনিধি ॥ “দিন যায় কথা থাকে ” সুবির নন্দীর কন্ঠে বিখ্যাত এই গানের শুরে শুর মিলিয়ে বলা যায় প্রশাসনেও – একজন  যায়, একজন আসে। কিন্তু ব্যতিক্রম হিসাবে থেকে যায় তার কর্মকান্ড। তেমনই একজন কর্মচঞ্চল ও কাজ পাগল মানুষ হলেন মিজানুর রহমান, শেরপুর ঝিনাইগাতী থানার বর্তমান ওসি মিজানুর রহমান। তিনি ঝিনাইগাতীতে যোগদান করার পরই পাল্টে যায় ঝিনাইগাতীর চিত্র । তার কাছে গিয়ে নিরুপায় হয়ে ফিরে এসেছেন এমন অভিযোগ কারী ঝিনাইগাতীতে বিরল। মানুষের পারিবারিক ,সামাজিক থেকে শুরু করে এমন কোন কাজ নেই যে তিনি করে দেন নাই।

তিনি যোগদানের পর থেকে তিনি ওসির দায়িত্ব সুষ্ঠুভাবে পরিচালনা করে আসছেন। ওসি মিজানুর রহমানের ব্যাপক তৎপরতায় ঝিনাইগাতী থানার আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি উন্নতি হয়েছে। জানা গেছে, গত ২০ মাসের মধ্যেই তিনি উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অসামাজিক কার্যকলাপ, জুয়া, মাদকসহ বিভিন্ন নাশকতামূলক কর্মকান্ড কঠোর হস্তে দমন করেছেন। এমনকি উপজেলা আইন-শৃঙ্খলা কমিটির মাসিক সভায় তিনি সমাজ থেকে মাদক নির্মূলের জন্য ‘মাদকের বিরুদ্ধে জিহাদ ঘোষণা’ করেছেন এবং মাদক নির্মূল করার জন্য চিরুনী অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

বতর্মানে এ থানায় রের্কড সংখ্যক মাদক ও জুয়া মামলার আসামি গ্রেফতার হচ্ছে। এ ছাড়াও বাল্যবিয়ে রোধসহ উপজেলার সার্বিক আইন-শৃঙ্খলার বিষয়ে প্রকৃত অপরাধীদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা গ্রহণ করেছেন তিনি। তিনি কমিউনিটি পুলিশিং কমিটিদের সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষে প্রতি মাসে আলোচনা সভার আয়োজন করেন। গ্রাম পুলিশদের আরও গতিশীল করার লক্ষ্যে তিনি প্রতি সপ্তাহের ১ম রবিবার তাদের হাজিরার দিন নির্দেশনা প্রদান করেন। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে জুয়া খেলা বন্ধের লক্ষ্যে অপরাধ দমন সভা করে জনসচেতনতা বৃদ্ধি, চুরি, ছিনতাইসহ বিভিন্ন অপরাধ দমনের লক্ষ্যে এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গসহ সুধী সমাজের সাথে মতবিনিময়, বিভিন্ন মসজিদে মসজিদে নামাযের পরে মুসল্লিদের উপস্থিতিতে সমাজ থেকে মাদক নিয়ন্ত্রণ, জুয়া বন্ধ, ইভটিজিং রোধ, বাল্যবিয়ে রোধ, নারী নির্যাতন বন্ধ, জঙ্গি তৎপরতা রোধ সম্পর্কে আলোচনা, রেজিস্ট্রেশনবিহীন ও নিয়ম বহি:ভূর্ত যানবাহনের  উপর অভিযান অব্যাহত রেখেছেন।

বনজসম্পদ রক্ষার জন্য বন বিভাগের কর্মকর্তাদের সাথে, চোরাচালান রোধে বিজিবি’র সমন্বয়ে বিশেষ ভূমিকা পালন করছেন তিনি। বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করার মধ্যে তিনি উপজেলার বিভিন্ন স্কুল, কলেজ ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের ধূমপান, মাদক, বাল্যবিয়ে ও ইভটিজিংয়ের কুফল সম্পর্কে সচেতনতা, মোবাইল ও ইন্টারনেটের অপব্যবহারের উপর সচেতনা মূলক  আলোচনা করে পরামর্শ প্রদান করে থাকেন। তিনি স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সাথে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষা করে বিভিন্ন অপরাধ দমন করেছেন। দেশের অন্যতম ঝিনাইগাতীর গজনী অবকাশ পিকনিক স্পর্ট কেন্দ্রে নিরাপত্তা ব্যবস্থা নিশ্চিত করার জন্য পোশাকধারী পুলিশ, সিভিল পোশাকধারী পুলিশের টহল অব্যাহত রেখেছেন। ওসির ব্যাপক তৎপরত্তা গ্রহণের জন্য আইন শৃংখলা পরিস্থিতি উন্নয়ন হয়েছে বলে জানান উপজেলা পুলিশিং কমিটির সাধারণ সম্পাদক মো.মজিবুর রহমান।

ওসি মিজানুর রহমান গাজীপুর ভাওয়াল কলেজ থেকে ১৯৮৮ সালে স্নাত্তক শেষ করেন। ১৯৯১ সালে বাংলাদেশ পুলিশে আউট সাইড ক্যাডেট এসআই হিসেবে যোগদান করে সুনামের সাথে তিনি ২০০৭সালে পদন্বিত লাভ করেন। তিনি ২০০৯ থেকে ২০১০ সাল পর্যন্ত জাতিসংঘ শান্তি রক্ষা মিশন দারফুর, সুদানে পুলিশ এডভাইজার হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। পরবর্তীতে টাঙ্গাইল জেলার ধনবাড়ী থানায় ৩ বছর ওসির দায়িত্ব পালন শেষে ২০১৫ সালের ১লা মে ঝিনাইগাতী থানায় যোগদান করেন। কাজপাগল এই মানুষটি  বলেন, কাজ করে মানুষের জন্য কিছু করতে পারলেই আমার স্বার্থকতা । কতুটুকু করতে পেরেছি তার মূল্যায়ন আমি করতে পারি নাই। যদি কিছুটা সাফল্যতা অর্জন করি সেটা এ উপজেলার মানুষের কৃতিত্ব।

ব্রেকিং নিউজঃ