| |

ঈশ্বরগঞ্জে শিক্ষকের বিরুদ্ধে জুতা মিছিল

আপডেটঃ 9:51 pm | February 16, 2017

Ad

ঈশ্বরগঞ্জ সংবদদাতা ॥ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জের একটি উচ্চ বিদ্যালয়ে এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে অন্য শিক্ষক জুতা মিছিল করিয়েছেন। বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় সহকারী প্রধান শিক্ষককে শোকজ করায় গতকাল বৃহস্পতিবার দুপুরে এমন ঘটনা ঘটেছে কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে। উপজেলার তারুন্দিয়া ইউনিয়নের কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে সহকারী কেন্দ্র পরিদর্শকের দায়িত্ব পালন করতে চেয়েছিলেন প্রতিষ্ঠানটির সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল লতিফ। কিন্তু পরিচালনা কমিটি তাকে সেই দায়িত্ব দেয়। কিন্তু দায়িত্ব না পাওয়ায় ক্ষিপ্ত হন সহকারী প্রধান শিক্ষক আবদুল লতিফ। ওই পরিস্থিতিতে বিদ্যালয়ে না আসার ঘোষণা দিয়ে পরিচালনা কমিটির সভাপতি ছুটি নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন আবদুল লতিফকে। কিন্তু ছুটি না নিয়েই গত ২ ফেব্রুয়ারি থেকে অব্যহত ভাবে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকায় বুধবার কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয় আবদুল লতিফকে। পরীক্ষার ফাঁকে ফাঁকে ক্লাস চলছে বিদ্যালয়টিতে। এতে শিক্ষার্থীদের পাঠদান ব্যহত হওয়ায় শোকজ করা হয়। বিদ্যালয়টি প্রধান শিকক্ষ মো. আবদুল হালিম গত বুধবার সহকারী প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল লতিফকে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিতির কারণ দর্শানো নোটিশ করেন। নোটিশে বলা হয় একাধিকবার মৌখিক ভাবে সতর্ক করা স্বত্ত্বেও বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকা আইন শৃংখলার পরিপন্থি। এতে বিদ্যালয়ের পাঠদান বিঘœ হওয়ায় কেন আপনার বিরুদ্ধে শাস্তিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে না, পত্র প্রাপ্তির সাত দিনের মধ্যে লিখিত ভাবে জবাব দিতে হবে। এদিকে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাওয়ার পর শিক্ষক আবদুল লতিফ ক্ষিপ্ত হয়ে এলাকার লোকজনকে ভিন্ন ভাবে প্রভাবিত করে। গতকাল এলাকার লোকজন নিয়ে কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের সামনে জুতা হাতে বিক্ষোভ মিছিল করে। প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বিভিন্ন অনিয়নের অভিযোগ তুলে বিচার দাবিতে মিছিল শেষে বিদ্যালয় চত্বরে সমাবেশে প্রধান শিক্ষকের বিরুদ্ধে বক্তব্য রাখেন সহকারী প্রধান শিক্ষক আবদুল লতিফ। সহকারী প্রধান শিক্ষক আবদুল লতিফ বলেন, প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ের সোলার প্যানেল স্থাপন না করে অর্থ আত্মসাৎ, সহায়ক বই পাঠ্য করার নামে প্রকাশনীর কাছ থেকে অর্থ, পুরাতন টিনশেড ঘর বিক্রি সহ বিভিন্ন খাতের টাকা কারো সাথে আলোচনা না করে একা আত্মসাৎ করেছেন। অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতার প্রতিবাদ করায় তাঁকে এ বছর পরীক্ষা কেন্দ্রের দয়িত্ব দেওয়া হয় নি। ওই অবস্থায় তিনি ব্যক্তিগত কারণে এক মাসের ছুটি নেন সভাপতির কাছ থেকে। কিন্তু  প্রধান শিক্ষক তাকে কারণ দর্শানোর নোটিশ করে। এতে এলাকার লোকজন ক্ষিপ্ত হয়ে প্রধান শিক্ষকের কর্মকা-ের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানায়। কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. আবদুল হালিম বলেন, বিনা অনুমতিতে বিদ্যালয়ে না আসায় কারণ দর্শানোর নোটিশ করা হয়েছে। শিক্ষক আবদুল লতিফ আগে কখনও সহকারী কেন্দ্র সচিব হিসেবে এই কেন্দ্রে দায়িত্ব পালন করেন নি। এলাকাবাসীকে নিয়ে তাঁর বিরুদ্ধে জুতা মিছিল করার বিষয়টি নিয়ে পরিচালনা কমিটির সাথে কথা বলা হয়েছে। বিষয়টি নিয়ে দ্রুত সভা করে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করবেন। কোনাপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পরিচালনা কমিটির সভাপতি মো. হাসান মোর্শেদ বলেন, দুই প্রধান শিক্ষকের ক্ষমতার দ্বন্দ্ব দীর্ঘ দিন ধরে চলে আসছে। পরীক্ষা কেন্দ্রের দায়িত্ব না পেয়ে ঘোষণা দিয়ে সহকারী প্রধান শিক্ষক বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত রয়েছে। ওই অবস্থায় শিক্ষককে শোকজ করা হলে তড়িঘরি করে একটি ছুটির আবেদন তার কাছে বুধবার রাতে জমা দেওয়া হয়।

ব্রেকিং নিউজঃ