| |

তারাকান্দায় ভেরুয়া-হারিয়াতলী রাস্তায় গজারীয়া খালের ব্রীজ প্রকল্প ভিন্নস্থানে নির্মান করায় জনতার বিক্ষোভ ॥ উপজেলা চেয়ারম্যানের আস্বাসে কর্মসুচী স্থগিত

আপডেটঃ 10:43 am | February 28, 2017

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক ॥ তারাকান্দা উপজেলার কামারগাঁও ইউনিয়নের ভেরুয়া হারিয়াতলা রাস্তায় গজারীয়া খালের ব্রীজের নির্মান কাজ ভিন্নস্থানে করার প্রতিবাদে হারিয়াতলঅ খালপাড়ে ২৭ ফেব্রয়ারী সকাল ১১টা হতে ১টা পর্যন্ত গ্রামবাসী ব্রীজের পাশে মানববন্ধন, বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে।  এ মানববন্ধন ও বিক্ষোভ মিছিলে শত শত গ্রামবাসী অংশ গ্রহন করেন। এ সময় গ্রামবাসী ভেরুয়া হরিয়াতলা রাস্তার মধ্যকার খালের উপর ব্রীজ নির্মান বহাল রাখার দাবী জানিয়ে বলেন, একটি মহলের কারসাজি করে ওই ব্রীজটি ভেরুয়া রাজদারিকেল মধ্যকার খালের উপর সেতু নির্মানের পায়তারা চলছে। তবে গ্রামের অপর পক্ষের দাবী, ভেরুয়া রাজদারিকেল মধ্যকার রাস্তার মাজার সংলগ্ন খালের উপর প্রস্তাবিত প্রকল্প অনুযায়ী ব্রীজটি নির্মানের জন্য টেন্ডার হয়েছে। তাই প্রকল্প স্থান ব্যাতিত অন্য স্থানে ব্রীজ নির্মাণ করার প্রশ্নই আসে না।         স্থানীয় হেলাল উদ্দিন সরকার জানান, ভেরুয়া হরিয়াতলা রাস্তার মধ্যকার খালের উপর সেতু নির্মান হলে স্থানীয় হরিয়াতলা, প্রজাপত খিলা, উলামাকান্দী, সালিয়াকান্দা ও হাড়িভাঙ্গা গ্রামের হাজার হাজার গ্রামবাসী উপকৃত হবে। তা না হলে এ উন্নয়ন প্রকল্প বৃহৎ জনগোষ্টির কোন কাজে আসবে না। কিন্তু একটি মহল ষড়যন্ত্র করে ব্রীজ প্রকল্পটি ভেরুয়া রাজদারিকেল মধ্যকার মাজার সংলগ্ন খালের উপর এ ব্রীজটি নির্মানের চেষ্টা করছে। উপজেলা প্রশাসন সূত্র জানায়, দূযোগ্য ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের অর্থায়নে ভেরুয়া হতে হরিয়াতলা রাস্তায় রাজদারিকেল মাজার সংলগ্ন গজারিয়া খালের উপর ৫৬লাখ ৮৯হাজার ১০৬ টাকা ব্যয়ে একটি প্রকল্প অনুমোদন হয়। তবে মানবন্ধনকারীদের দাবী, সেতু প্রকল্পটিতে পূর্বে ভেরুয়া হতে হরিয়াতলা বাজার এলাকার খালের উপর ব্রীজ নির্মান করার কথা থাকলেও উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম ও ইউপি চেয়ারম্যান রফিকুল ইসলামের যোগসাজসে প্রকল্পের টেন্ডারে পরিকল্পিত ভাবে মাজার উল্লেখ করা হয়। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা শফিকুল ইসলাম বলেন, স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানের প্রস্তাবনায় এ প্রকল্প অনুমোদন হয়েছে। কিন্তু একটি সিন্ডিকেট পরিকল্পিত ভাবে এ সেতু প্রকল্পটি নিয়ে বিশৃংখলা করছে। তারাকান্দা উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও ময়মনসিংহ জেলা উত্তর বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম আহবায়ক মোতাহার হোসেন তালুকদার বলেন, এলাকার মানুষের দাবীর প্রেক্ষিতে সমঝোতা করে মাত্র ৩০গজ পূর্বে সেতুটি নির্মাণ হলে এলাকার সবাই খুশি থাকবে। এবিষয়ে ময়মনসিংহ-২(ফুলপুর-তারাকান্দা) আসনের আওয়ামীলীগ দলীয় এমপি শরীফ আহম্মেদ বলেন, এক স্থানের প্রকল্প অন্য স্থানে করার সুযোগ নেই। তবে গ্রামবাসীর দাবী অনুযায়ী ওই স্থানে আরেকটি সেতু দ্রুত নির্মান করা হবে। ইতিমধ্যে প্রকল্প তৈরীর কাজ শুরু করা হয়েছে বলেও জানান। কামারগাঁও ইউনিয়নের মো: হেলাল উদ্দিনের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন তারাকান্দা উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন তালুকদার, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো: রুকুনুজ্জামান, ইউপি সদস্য মো: রফিকুল ইসলাম, মো: কাসুম আলী ফকির, মো: জালাল বিশ্বাস, মো: মোস্তাফিজুর রহমান মোস্তফা, সাবেক ইউপি সদস্য মো: আব্দুল খালেক, মো: নুরুল আমীন, মো: আব্দুল মালেক, মো: আব্দুল হক, মো: নাজিম উদ্দিন কারী, সাবেক ইউপি সদস্য ডা: নিরাঞ্জন সরকার, মো: জয়নাল আবেদীন প্রমুখ। এসময় উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন তালুকদার এর আস্বাসে গ্রামবাসী আপাদত তাদের কর্মসুচী স্থগিত করেন। তবে এ ব্যাপারে সংসদ সদস্য, উপজেলা চেয়ারম্যান, উপজেলা নির্বাহী অফিসার, উপজেলা প্রকল্প কর্মকর্তা, ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান যৌথ ভাবে আলোচনা করে জনতার দাবী বাস্তবায়ন করার পদক্ষেপ নেয়া যেতে পারে বলে উপজেলা চেয়ারম্যান মোতাহার হোসেন তালুকদার বলেন।

ব্রেকিং নিউজঃ