| |

শেরপুরের ঝিনাইগাতীতে সরকারী গভীর নলকুপ স্থাপনে সরকারী নিয়মকেই মানা হচ্ছে না!

আপডেটঃ 10:13 pm | February 28, 2017

Ad

মো. জয়নাল আবদিন, ঝিনাইগাতী ॥ শেরপুর জেলার ঝিনাইগাতী উপজেলার পানির স্তর নিচে নেয়ে যাওয়ায় মাঝারী স্তরের পানির সংকট। তাই বর্তমান সরকার সাধারণ মানুষের পানীয় জলের ব্যবস্থার জন্য অত্র উপজেলায় প্রায় ৫০টি মতো গভীর নলকুপ বরাদ্দ প্রদান করেছে। বরাদ্দকৃত প্রায় ৫০টি গভীর নলকুপ ৭টি ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে ব্যক্তি মালিকানায় বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। উল্লেখ্য, উক্ত বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপ সর্ব সাধারণের পানি খাওয়ার জন্য এই নলকুপ গুলি প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপের ব্যক্তি নামের মালিকরা নিজ বাড়ীর ভিতরে একক ভাবে ব্যবহারের কার্যক্রম করায় বাড়ীর আশে-পাশের লোকজন ওই গভীর নলকুপের পানি সংগ্রহ করার অধিকার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশংকা দেখা দিয়েছে। যে কারণে এলাকাবাসীর অভিযোগ উঠেছে সরকারী বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপগুলি সাধারণ মানুষের পানীয় জলের ব্যবস্থার জন্য বরাদ্দ প্রদান করা হয়েছে। কিন্তু কেন ব্যক্তি মালিকরা সরকারী নিয়ম-নীতি ভঙ্গ করে ব্যক্তি স্বার্থে একক সুবিদার্থে নিজের বাড়িতে স্থাপন করেছেন। প্রকাশ থাকে যে, ইতিমধ্যেই বরাদ্দকৃত প্রায় ৫০টির মধ্যে অধিকাংশ গভীর নলকুপ ব্যক্তি স্বার্থে প্রত্যেক বাড়িতে স্থাপন করে নিয়েছেন। আরও জানা যায়, সরকারী ভাবে নলকুপগুলি সর্বসাধারণের পানীয় সুবিধার জন্য বিভিন্ন গ্রামে স্থাপন করার নিয়ম। কিন্তু এক্ষেত্রে সে নিয়ম না মেনে বিভিন্ন কূট কৌশলে একই বাড়িতে ১শ গজের মধ্যে ২টি নলকুপ স্থাপন করার কাজ চলছে। এতে এলাকাবাসী এমন কান্ড দেখে হতবাক না হয়ে পারছে না। তাই এলাকাবাসীর অভিযোগ সরকারী বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপগুলি স্থাপনের ক্ষেত্রে সরকারী নিয়ম-নীতি না মেনে ব্যক্তি সুবিধার জন্য সরকারী স্বার্থ নষ্ট করে ব্যক্তি স্বার্থে স্থাপনকৃত নলকুপগুলির উপর আইনী দৃষ্টিতে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ দাবী জানিয়েছেন অত্র উপজেলাবাসী।  সূত্রমতে জানা যায়, এসকল সরকারী ভাবে বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপ বিতরণে নানা অনিয়ম ও স্বজনপ্রীতির অভিযোগ রয়েছে। প্রকৃতপক্ষে যে সমস্ত এলাকায় পানির তীব্র সংকট ওই সমস্ত এলাকায় বরাদ্দকৃত গভীর নলকুপগুলির একটিও বরাদ্দ দেওয়া হয়নি। এতে এলাকাবাসী পানীয় জলের সরকারী এই সুবিধা থেকে বঞ্চিত হচ্ছে তেমনি সরকারের উদ্দেশ্য ভেস্তে যাচ্ছে।  প্রকাশ থাকে যে, অত্রাঞ্চলের অধিকাংশ গ্রামগুলিতে পানির স্তর নিচে নেমে যাওয়ায় সাধারণ টিউব ওয়েল, কুয়া’তে খাবার পানি পাওয়া যাচ্ছে না। এতে সাধারণ মানুষের বিশুদ্ধ পানির তীব্র সংকট দেখা দিয়েছে। আর খাবার পানি সংগ্রহের জন্য গ্রামের লোকেরা বিভিন্ন নদী-নালা, খাল-বিল থেকে পানি সংগ্রহ করছে। কারণ হিসাবে জানা যায়, বুরো চাষাবাদের জন্য গভীর নলকুপ স্থাপন করার ফলে উপরের পানির স্তর নিচে নেমে যায়। ফলে হাজার হাজার টিউব ওয়েল ও কুয়া পানি শূণ্য হয়ে যায়। তাই বিশুদ্ধ পানির জন্য ঝিনাইগাতী উপজেলায় শতাধিক গ্রামের প্রায় ২লক্ষাধিক লোকের জন্য কয়েক হাজার গভীর নলকুপ অতিব জরুরী প্রয়োজন। তাই অবিলম্বে সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষ অত্র উপজেলার সাধারণ মানুষের পানীয় জলের সংকট নিরসনে প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নিবেন এমন প্রত্যাশা অত্র উপজেলাবাসী।

ব্রেকিং নিউজঃ