| |

আগামীতে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না আসলে বাংলাদেশ জঙ্গি রাষ্ট্র হবে

আপডেটঃ 11:50 pm | March 13, 2017

Ad

মো: নাজমুল হুদা মানিক বাংলাদেশ স্বেচ্ছাসেবকলীগ ময়মনসিংহ জেলা শাখার মতবিনিময় কার্যনির্বাহী কমিটির সভা ১১ মার্চ সকাল ১১টায় হোটেল ইন্টারন্যাশনাল এর নুরজাহান গার্ডেনে অনুষ্ঠিত হয়েছে। ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি এডভোকেট এবিএম নুরুজ্জামান খোকন এর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এডভোকেট আলহাজ্ব জহিরুল হক খোকা।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে এড. জহিরুল হক খোকা বলেন, বিএনপিকে অস্তিত্ব টিকিয়ে রাখার জন্যই নির্বাচনে আসতে হবে। নির্বাচনে না আসলে জনগনের মাঝে তাদের অস্তিত্ব খোজে পাওয়া যাবেনা।

তিনি বলেন, আগামীতে আওয়ামীলীগ ক্ষমতায় না আসলে বাংলাদেশ জঙ্গি রাষ্ট্র হবে। মিনি পাকিস্থান হবে। তিনি বলেন, পাকিস্থানী তাদের দোষরদের সকল ষড়যন্ত্র নস্যাৎ করে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশকে স্বাধীন করে ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর মত নেতার জন্ম হয়ে ছিল রলেই বাংলাদেশ স্বাধীন হয়েছে। এড. খোকা বলেন, আওয়ামীলীগের কোন শত্রনেই।

আওয়ামীলীগের শত্রনিজেরাই। তিনি বলেন, চেষ্টা করছি সুন্দর সচ্ছ ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগ কমিটি করতে। নিয়মতান্ত্রিক পরিচ্ছন্ন কমিটি করতে। তিনি বলেন, সর্বঅঙ্গে গা মলম লাগাব কোথায়, তারপরও চেষ্টা অভ্যাহত থাকবে। তিনি বলেন, অনেক সংগঠনে টাকার জোরে নেতা হয়েছে।

স্বেচ্ছাসেবকলীগে এটি হয়নি। ময়মনসিংহে নতুন ধারার রাজনীতি সৃষ্টি করবে স্বেচ্ছাসেবকলীগ। তিনি বলেন, অনেক কমিটি নিয়ে অভিযোগ রয়েছে, স্বেচ্ছাসেবকলীগে এটি নেই ভবিষ্যতেও থাকবেনা বলে আশা করি।

ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম বলেন, জাতির জনক জাতিকে একত্রিত করতেই মাসে স্বাধীনতার ডাক দিয়ে ছিলেন। বঙ্গবন্ধুর ডাকেই বাঙ্গালী নতুন ভাবে উজ্জিবীত হয়ে ছিল।

তিনি বলেন, বাঙ্গালী জাতিকে বঙ্গবন্ধু বাংলাদেশ স্বাধীনতার ইতিহাস জানতে হবে। দলীয় নেতাকর্মীদের তিনি বলেন, অতীতে যারা দলাদলি করেছে তারা কেউই পদে আসতে পারেনি। যারা দলাদলি করেন তাদের এটি মনে রাখতে হবে।

তিনি বলেন, বর্তমানে ছাত্রলীগ, যুবলীগ যা করতে এটি দু: জনক। এটি মেনে নেয়া যায়না। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের আহবান জানান, আসুন আলোচনায় বসি। কোন অবস্থাতেই যেন বিশৃংখলার পরিবেশ সৃষ্টি হতে না পারে। তিনি বলেন, শক্ত হাতে দলকে পরিচালনা করা হবে। কোন সন্ত্রাসীকে ছাড় দেয়া হবেনা। কোন বিভাজন নয়।

আওয়ামীলীগকে শক্তিশালী করতে হবে। জননেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতকে শক্তিশালী করতে হবে। তিনি দলীয় নেতাকর্মীদের সকল বিভাজন ভুলে এক্যবদ্ধ হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, শেখ হাসিনা আবার ক্ষমতায় না আসলে যুদ্ধাপরাধীরা জঙ্গিরা আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের ঘর থেকে ধরে এনে জব করবে।

ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, বঙ্গবন্ধুর ইতিহাস বাঙ্গালীর ইতিহাস, বাংলাদেশের ইতিহাস। তিনি বলেন, বাঙ্গালী বাংলাদেশকে স্বাধীন করার জন্যই বঙ্গবন্ধুর জন্ম হয়ে ছিল।  ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান বলেন, আওয়ামীলীগ বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সংগঠন।

আওয়ামীলীগ ত্যাগের সংগঠন। আওয়ামীলীগ মানুষকে দেওয়ার জন্য এসেছে। তিনি বলেন, যে দলে রিক্রুটমেন্ট নেই সেই দল মুসলিমরীগের মত হয়ে যায়। আওয়ামীলীগে রিক্রুটমেন্ট আছে সুতরাং এই দল প্রতিনিয়ত উন্নতির শিখরের দিকেই যাবে। তিনি বলেন, স্বেচ্ছাসেবকলীগ নেতা কর্মীদের দেখে ভাল লাগছে।

বর্তমান জেলা মহানগর কমিটিতে তারুন্যের সমাহার ঘটেছে। বর্তমান সরকারের উন্নয়ন তরান্নিত করতে এই তরুনেরা জুড়ালো ভুমিকা পালন করবে। তিনি বলেন, বর্তমান জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি এড. খোকা এড. মোয়াজ্জেম হোসেনের নেতৃত্বে গতিশীল সুসংগঠিত জেলঅ আওয়ামীলীগ গড়ে তুলতে হবে।

ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু, বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে জননেত্রী শেখ হাসিনা জীবনপন কাজ করে যাচ্ছেন। জননেত্রীর উন্নয়নকে তরান্নিত করতে আওয়ামীলীগের পাশাপাশি স্বেচ্ছাসেবকলীগ প্রসংশনীয় ভুমিকা পালন করছে। তিনি বলেন, লড়াই সংগ্রামেও স্বেচ্ছাসেবকলীগ সোচ্চার ভুমিকা পালন করে যাচ্ছে।

তিনি বলেন, আগামী নির্বাচনে বাংলাদেশের উন্নয়নকে অভ্যাহত রাখতে আওয়ামীলীগকে আবার ক্ষমতায় আনতে হবে। তিনি বলেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগকে কেউ হারাতে পারেনা। ঐক্যবদ্ধ আওয়ামীলীগের কোন বিকল্প নেই।

ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক উত্তম চক্রবর্তী রকেট এর পরিচালনায় বিশেষ অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন ময়মনসিংহ মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম, ময়মনসিংহ জেলা আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক এডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ইউসুফ খান পাঠান, ময়মনসিংহ পৌরসভার মেয়র মো: ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামীলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক অধ্যাপক গোলাম ফেরদৌস জিল্লু, সাবেক যুব বিষয়ক সম্পাদক আলহাজ্ব রেজাউল হাসান বাবু,

সাবেক সাংস্কৃতিক সম্পাদক আহম্মদ আলী আকন্দ, জেলা যুবলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক এম কুদ্দুছ, জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক শাহ শওকত উসমান লিটন, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের আহবায়ক মোফাখ্খারুল ইসলাম, জেলা কৃষকলীগের সাধারন সম্পাদক গোলাম মোস্তফা বাবুল ভিপি বাবুল প্রমুখ।

এসময় সাবেক বৃহত্তর ময়মনসিংহ জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন সম্পাদক আলহাজ্ব শামসুল আলম তালুকদার, জেলা ছাত্রলীগের সাবেক সাধারন শওকত জাহান মুকুল, ময়মনসিংহ জেলা মটর মালিক সমিতির মহাসচিব মো: মাহবুবুর রহমান মাহবুব, জেলা যুবলীগের সাবেক প্রচার সম্পাদক বজলুর রশিদ নাছিম, জেলা যুবলীগের যুগ্ন আহবায়ক আখেরুল ইমমি সোহাগ, জেলা কৃষকলীগের সভাপতি মো: আব্দুর রহিম মিন্টু, মহানগর স্বেচ্ছাসেবকলীগের যুগ্ন আহবায়ক মো: আব্দুল আওয়াল মিন্টু, শেখ মাসুম, ময়মনসিংহ জেলা পরিষদ মহিলা সদস্য মিসেস আরজুনা কবির প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

সভার শুরুতে জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সভাপতি৫২, ৭১, ৭৫, ৯০ সহ সকল গনতান্ত্রিক আন্দোলনে শহীদ, আওয়ামীলীগের সকল পর্যায়ের শহীদ নেতাকর্মী, বিশেষ করে ময়মনসিংহের প্রয়াত সকল আওয়ামীলীগ নেতাকর্মীদের আত্মার মাগফিরাত শান্তি কামনা করে শোক প্রস্তাব পাঠ করেন।

সকল শহীদদের আত্মার প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এসময় মিনিট নিরবতা পালন করা হয়। সকল মরহুমদের আত্মার শান্তি মঙ্গল কামনা করে দোয়া করা হয়।

দোয়া পরিচালনা করেন মহানগর আওয়ামীলীগের সভাপতি আলহাজ্ব এহতেশামুল আলম। ময়মনসিংহ জেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারন সম্পাদক উত্তম চক্রবর্তী রকেট বলেন, জেলা আইন শৃংখলা কমিটির সভায় আওয়ামীলীগ সভাপতি সাধারন সম্পাদক সহ সহযোগী সংগঠনের সভাপতি সাধারন সম্পাদককে সম্পৃক্ত করার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা করতে হবে।

তিনি বলেন, ২৪ বছর পুর্বে শম্ভুগঞ্জ ব্রীজ চালু হলেও এখনো টুল আদায় করা হচ্ছে। এটি অত্যন্ত দু: জনক। অনতি বিলম্বে ব্রীজের টুল আদায় বন্ধ করে দেয়া উচিত।

 

 

ব্রেকিং নিউজঃ